কবি আরিফুল ইসলাম এর তৃতীয় কাব্যগ্রন্থ প্রি-অর্ডার করতে এখানে ক্লিক করুন
অন্ধ দুর্দশার থেকে স্নিগ্ধ আঁধারের দিকে ।।  মৃন্ময় চক্রবর্তী  
$post->title

চাঁদটা গড়িয়ে পড়বে নাকি এখনই? ঝোপের ভেতরে ফুটে আছে জোনাকির রাতফুলআলোগুলো ঝিঁঝিঁর মতো ডাকছেঝুপ ঝুপ ঝুপ! শব্দ হচ্ছে পাহাড়ের নীচেদুজন মানুষ মাটি কাটছেঝুপ ঝুপ ঝুপ

আসু দ্যাখসো, কবরখান বেশ বড়ো হইসেকেউ কথা বলল তাদের মধ্যে, তারপর আর কথা নেইঝুপ ঝুপ ঝুপ ঝুপ শব্দ আর ঝিঁঝির গান খানিক পর উত্তর এলো, হ মাধব, আমাগো দোনো পরিবারের জাগা হইবোতুমি কাইল একখান অস্তর যোগাড় কইরো, হাত দিয়া আর কত কাটবা মাটি!

দিনের উদাসীন আলো এসে আবার সব মুছে দেয়তখন নির্জন পাহাড়ি বনে হাওয়ার মর্মরদিন ফুরোলেই আবার জোনাকির ফুল, আলোর ঝিঁঝিঁডাক, ঝুপঝুপ কোদালের শব্দপ্রতিদিন মানুষ বাড়ে একজন, দুজনকবর বড়ো হয়কেউ কথা বলে, মাস্টার হুইনছনি, কাল নেতায় আইয়া কইসে আমাগো নাকি সমস্যা নাইকাগজ নাই তো কী হইসে কোম্পানিরা নাকি আমাগোরে কাজ দিবার চায়!

পাহাড়ের মাথার উপর থেকে পেঁচার ডাক ভেসে আসেউড়ে যায় প্রবীণ বাদুড়আবার সব চুপ হয়ে যায়ঝুপ ঝুপ শব্দ ভাসেজোনাকির ঝিঁঝিগান উড়ে বেড়ায়কবরটা দিনে দিনে বড়ো থেকে আরো বড়ো হয়আবার কেউ কথা বলে ওঠে, আসুদ্দিন, কোম্পানিরা ক্যান কাজ দিবার চায় বুঝলানা? দ্যাশ নাইদের কাজ দিবার চায় ক্যান? স্যাজের নাম শুনছ? স্যাজের লগে নার্সির পিরীত বুঝলা না মাধব!

স্যাজ কী মাস্টার?

চোষণের কারখানাবেতন নাই, সময়ের সীমা নাই, বারো ঘন্টা, চৌদ্দ ঘন্টা, আঠারো..

যাদের কাগজ নাই তাদের চাকরি ক্যামনে?

তাতেই তো সুবিধা আসুদ্দিন জিব্বার বারণ নাই বুইজ্জোনি!

ওরা আমাগো দ্যাশহীন কইরা দাস বানাইতে চায়?

 

আবার সব চুপচাপআবার ঝুপঝুপ ঝুপঝুপজোনাকির ঝিঁঝিঁডাকবুড়ি চাঁদ পাথরে গড়ায়

কবর অনেক বড়ো হইসে মাস্টারআমাগো মাটি থ্যাইকা সরাইতে পারব না আরহ, একখান গোটা দ্যাশের মাইনসের জাগা হইবঝুপঝুপ ঝুপঝুপ

 

রাত গিয়ে দিনের উদাসীন আলো এসে আবার সব ঢেকে দেয়পাহাড়ি হাওয়ায় তখন পাতার মর্মর              


সাবস্ক্রাইব করুন! মেইল দ্বারা নিউজ আপডেট পান