লিটন প্রবীর এর কবিতাগুচ্ছ
$post->title
মানভঞ্জনের পালা

( কবি গুরু রবীন্দ্রনাথের জন্মজয়ন্তীতে শ্রদ্ধার্ঘ)

শেষের কবিতায় অমিতের
কাছে কেতকী ছিল ঘড়ায় তোলা জল,
আর লাবণ্য, দীঘির মত,
চাইলেই মন তাতে
ডুব সাতার কাটতো।
আমার ভালোবাসার দীঘি
গেছে শুকিয়ে মরা গাঙের মত,
ঝোপ ঝাড় কচুরি পানায় ভরে গেছে।
ফোটেনা আর লাল পদ্ম,
শাপলা শালুক ফুল।
দিঘীর পাড়ে আমলকি গাছটায়
মাছরাঙা পাখিটা নিরলস বসে থাকে,
ডাহুক পাখিটাও খুঁজে ফিরে যায়
পদ্ম পাতার ফাঁকে ডানকিনে মাছ।
মাঝ দুপুরে জামরুল গাছটার
পাতার ফাঁকে ঘুঘু ডাকে
মন খারাপের সুর তুলে।
অলস দুপুরে উদাসী হাওয়ায়
মন ভরে যায় বিষন্নতায়।
ইন্দ্রনাথের বাঁশি শুনে ছেলেবেলায়
আমিও ভাবতাম "যদি এমন করিয়া
বাঁশি বাজাইতে পারিতাম "?
কালার বাঁশির সকরুণ সুরে
রাধার যে ঘরে থাকাই হতো দায়।
কদম তলায় দুজনে বৃষ্টিতে ভিজে
হতো মানভঞ্জনের পালা,
ভিজে লেপ্টে থাকা মেঘডুম্বুর শাড়িতে
জরিয়ে ধরে খোপায় গুজে দিতাম
বর্ষায় ফোটা প্রথম কদম ফুল।
না হয় অভিমানের বিরহটাই
থাকুক ভরা বর্ষায়,
ভালোবাসা দিঘীর জলে বৃষ্টিতে
ভিজে তুলুক মানভঞ্জনের সুর।

ভাবনার ওপারে

তোমার ভাবনার ওপারে সীমান্তরেখায়
দেখো ঠিক চলে যাব একদিন।
ভালোবাসা দেখেছ,দেখনি অভিমান!
হিমালয়ের মত, সাহারার মরুভূমির
মত আদিগন্ত বিস্তৃত,
শান্ত হঠাৎ ফুঁসে উঠা সমুদ্রের মত
বিশাল ভয়ঙ্কর।
মাথার উপর নীল আকাশে অভিমানের
মেঘ কালো হয়ে উঠবে ঝড়,
সন্ধ্যা প্রদীপ নিমিশেই নিভে
যাবে দুরন্ত বাতাসে।
তোমার সুন্দর ভাবনা গুলোও
কালো মেঘের বুক চিরে মুষলধারে
ঝড়া বৃষ্টিতে ধুয়ে মিশে যাবে
কাদামাটির গায়ে।
প্রচন্ড দমকা বাতাসে খুলে যাবে
বদ্ধ ঘরের সব জানালা কপাট।
ভীষণ শব্দ করে বিজলি চমকাবে,
বাঁজ পড়বে অন্তরাত্মা কাঁপিয়ে।
নিকষ কালো অন্ধকারে
দেখবে প্রেতলোকের ছায়া।
খড় কুটোর মত আশ্রয় খুঁজবে,
এই বুঝি উড়ে যায় মাথার উপর ছাদ।
বুঝবে কতটা ভয়ার্ত তুমি অসহায়,
কোথায় পাবে আঁকড়ে ধরার মত
শক্ত একটা হাত?
প্রেমাদর্শের উপাখ্যান

রাধা-কৃষ্ণের আত্মনিবেদিত প্রেম, কল্পনায় তোমার আমার মতই
প্রেমাদর্শের উপাখ্যান।
মিলনের আশায় দ্বীপ শিখার মত
হৃদয়ে আশার প্রদীপ
জ্বালিয়ে রেখেছ শকুন্তলা।
আমার হৃদয়েও যে প্রেম বিরহের
যন্ত্রনা তীব্র হয়ে বাজে।
রাজৈশ্বর্য, বৈভব,প্রতিপত্তি নেই আমার,
শুধু আছে তোমার জন্যে হৃদয়ের
নিভৃত স্থানে অনুপম সুন্দর
প্রেমৈশ্বর্য ভরা।
তুমি লজ্জা ভয় সংকোচের
আবরন ছিড়ে এগিয়েছ,
সমাজ সংসারের কূটনীতি প্রথানুগত্যের
বিরুদ্ধে তীব্র বিদ্রোহে।
প্রেমের এই অনিবার্য আকর্ষণ
নির্ভরতা একাগ্রতা পূঁজায়,
ধর্ম-অধর্ম না ভেবেই
আমিও বিলিন হয়েছি।
এই কামনার চঞ্চলতা প্রেমের মুগ্ধতা
নির্ভরতা এই নৈবেদ্য নিয়ে
প্রেমের আকুলতা,
দুষ্মন্তের মত আমিও
বিস্মৃত হই কেমন করে শকুন্তলা?
সংকট কাল

সংকট কাল ক্রান্তি কাল
মনে হয় খুব দীর্ঘ হয়,
দুঃখের সময় গুলোতে অনেক
নির্ঘুম অফুরান রাতের মত
কষ্ট কর জেগে থাকা।
কেবলি হতাশা ভিড় করে মনে,
মাঝে মাঝে হতাশার অতল
সমুদ্রে ডুবে যাই,শ্বাস প্রশ্বাস চেপে
প্রাণপণ লড়াই করি বাঁচার চেষ্টায়।
মন শান্ত রাখতে প্রাণায়াম করি।
তোমাকেও বলি,কেন শুয়ে বসে
অলস সময় কাটাও?
চলো দুজনে যোগ নিদ্রায় যাই,
ধ্যানে আত্ববিশ্বাস বাড়িয়ে ভুলে যাই
পার্থিব দুঃখ কষ্ট হতাশা।
সুকান্ত, জীবনান্দ দাস পড়বে?
আবুল হাসান,শামসুর রাহমানের কবিতা শুনবে? জীবন যুদ্ধের
জীবন বোধের চেতনায় ভরা।
ভর সন্ধ্যে বেলায় রবিশংকরের
সেতার,বিসমিল্লাখাঁর সাঁনাই ও
শুনতে পার,
না হয় মেহেদি হাসান,রশীদ খান,
ফতেহ্ আলী খানের গজল,
কেমন আইডিয়া বল?
সব ছেড়ে যদি অতীত স্মৃতির
শান্ত প্রকৃতির নিরিবিলি গাঁয়ের
খোঁজ চাও তবে পড়ে দেখো
বিভূতিভূষণ।
দেখবে চল সত্যজিৎ রায়ের
পথের পাঁচালি,
দেখবে চোখের সামনে কি
অদ্ভুত সুন্দর প্রকৃতি,অপু দূর্গাকে,
আর বাস্তবে ফিরতে চাইবেনা তুমি।
পাশেই যে অশনিসংকেত,
নিরন্নের কাল,আবার বাস্তবে
ফেরা মহাসঙ্কটের সময়ে।
তাতেও যদি ভালো না লাগে
রবীন্দ্রনাথ তো রইলেনই,
গিতাঞ্জলীর সব গানের ডালি সাজিয়ে।
তবে চলো দু চোখ বন্ধ করে
কানে হেড ফোন লাগিয়ে
শেষের কবিতার প্রেমে,
আমি অমিত আর তুমি লাবণ্য।
অনুভব
জন্মান্ধ প্রেমে আমিও মজেছি পঞ্চমী,
মায়াবিনীর কথার মায়াজালে
আমিও হয়ে যাই প্রেমিক জগদীশ।
আমার প্রেমও যে জন্ম থেকেই অন্ধ!
বয়সের সাথে সাথে মনটা
যাচ্ছে বেমানান,
সবাই বোঝায় বাস্তবতা, মন বোঝে কই?
গ্রহ নক্ষত্র দিন ক্ষণ পঞ্জিকা মিলিয়ে
হয় কি ভালোবাসা? মিলে কি সব
হিসেব? থেকে যায় গরমিল।
সময়,নিয়তির অমোঘ শক্তিতে ভাসিয়ে
নিয়ে যায় উষ্ণশ্বাসের মুক্ত প্রেমে,
তারই কোমল মধুর স্পর্শে
আন্দোলিত হয় হৃদয়।
প্রেমের এই প্রচন্ডতা কখনো মাধুর্যতা,
কখনো আবেগময়তা এই স্থির
জীবনের অনুভবেরই প্রকাশ।
তোমার প্রতিই আমার আত্মনিবেদন,
প্রেমের নিবিড় আত্মসমর্পণ,
আমি কাম দেবতা তুমি শকুন্তলা।


সাবস্ক্রাইব করুন! মেইল দ্বারা নিউজ আপডেট পান