যুগ সচেতন চলচ্চিত্রকার ঋত্বিক ঘটকের সাক্ষাৎকার
$post->title
বাংলা চলচ্চিত্রের ভাণ্ডার যাদের দেয়া সম্পদের দ্বারা সমৃদ্ধ, ঋত্বিক কুমার ঘটক তাদের মধ্যে অন্যতম। বাংলা চলচ্চিত্রে তার অবদান অসামান্য। তিনি ছিলেন যুগ সচেতন চলচ্চিত্রকার গল্পকার, নাট্যকার এবং অভিনেতা। দৃশ্যশিল্পের প্রায় সব রূপেই ছিলেন এক মহামানব।
এই কিংবদন্তীর জন্ম ১৯২৫ সালের ৪ নভেম্বর ঢাকার ঋষিকেশ দাশ লেনে ঐতিহ্যময় ঘটক বংশে। তিনি সুরেশ চন্দ্র ঘটক ও ইন্দুবালা দেবী দম্পতির ১১তম এবং কনিষ্ঠতম সন্তান। মানুষকে তিনি দেখেছেন, মানুষের সংগ্রাম নিয়ে তিনি ভেবেছেন, পীড়িত মানুষের দুঃখে তিনি কেঁদেছেন। অষ্টম শ্রেণীতে পড়াকালীন শ্রমিক আন্দোলনের সঙ্গে তিনি জড়িয়ে পড়েছিলেন ঋত্বিক ঘটক।
ঋত্বিক ঘটকের শৈশবের একটা বড় সময় কেটেছে রাজশাহী শহরে। রাজশাহীর কলেজিয়েট স্কুল থেকে মেট্রিক পাশ করেন এবং ১৯৪৬ সালে রাজশাহী কলেজ থেকে আই.এ পাশ করেন ঋত্বিক। ১৯৪৭ এর ভারত বিভাগের পরে পূর্ববঙ্গের প্রচুর লোক কলকাতায় আশ্রয় নেয় এবং এরই ধারাবাহিকতায় তার পরিবারও কলকাতায় চলে যায়। তবে নিজের জন্মভূমি ত্যাগ করে শরণার্থী হবার মর্মবেদনা ঋত্বিক কোনোদিন ভুলতে পারেননি এবং তার জীবন-দর্শন নির্মাণে এই ঘটনা ছিল সবচেয়ে বড় প্রভাবক যা পরবর্তীকালে তার সৃষ্টির মধ্যে বারংবার ফুটে ওঠে। কলকাতায় ঋত্বিক ঘটক ১৯৪৮ সালে বহরমপুর কৃষ্ণনাথ কলেজ থেকে বি.এ ডিগ্রি লাভ করেন এবং ১৯৫০ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজিতে এম এ কোর্সে ভর্তি হন। এরই মাঝে নাটকের প্রতি তই আকৃষ্ট হয়ে পড়ে যে নাটকের নেশাতেই এম.এ কোর্স শেষ করেও পরীক্ষা না দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ত্যাগ করেন তিনি।
শুধু তার কর্মে না কথায় ছিল শিল্প। কিংবদন্তী ঋত্বিক ঘটকের সাক্ষাৎকারটি ১৯৭৫ সালে গ্রহণ করেছিলেন প্রবীর সেন।

আপনি কেন চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন?
ঋত্বিক ঘটক : আমি পাগল, চলচ্চিত্র তৈরি না করেই বাঁচতে পারি না। আমার কিছু করতে হবে। তাই আমি চলচ্চিত্র নির্মাণ করি। সত্যিই, অন্য কোন কারণ নেই।

যখন আপনি একটি চলচ্চিত্র নির্মাণ করার সিদ্ধান্ত নেন এবং বিষয় নির্বাচন করেন তখন কি কি খেয়াল করেন?
ঋত্বিক ঘটক : মানুষ। আমি সমসাময়িক জীবনের সংগ্রাম এবং দুর্দশা দেখি। আমি বলতে চাচ্ছি যে, আমি আমার ক্ষমতার সর্বোচ্চ দেয়ার চেষ্টা করি। আমার একমাত্র উদ্বেগ আমার দেশের নর এবং নারীদের নিয়ে। আমার কাছে কিছুই নেই। আমার দেশবাসী আমাকে গ্রহণ করুক অথবা না করুক সেটা কোনো ব্যাপার না। আমার একমাত্র বিষয় হল আমার দেশের নর ও নারী। আর আমি কি পেয়েছি, তাই?

চলচ্চিত্র নির্মাণের মূল উদ্দেশ্য কি হওয়া উচিত?
ঋত্বিক ঘটক : চলচ্চিত্র তৈরির প্রাথমিক লক্ষ্য মানবজাতির জন্য ভাল কিছু করা। যদি আপনি মানবতার জন্য ভাল কিছু না করেন, কোন শিল্পই শিল্পের কাজ করে না। রবীন্দ্রনাথ বলেছিলেন যে, ‘শিল্পটি সত্যের প্রতি বিশ্বস্ত এবং দ্বিতীয়ত সৌন্দর্য (সত্যম ও সুদর্শন)।’ এই সত্য একটি শিল্পী নিজস্ব অনুভূতি এবং ধ্যানের বাইরে । যেহেতু সত্য কখনোই চিরস্থায়ী এবং ধ্রুবক নয় এবং এই দুনিয়া সবসময়ই বিষয়গত এবং পরিবর্তিত হয়, প্রত্যেকেরই তাদের ব্যক্তিগত জীবনে তাদের সমগ্র জীবনের গভীরতম চিন্তাধারা এবং উপলব্ধির সাথে আসা উচিত। এটি কেবল সম্পূর্ণরূপে উপলব্ধি করার পরেই সেই সত্য গ্রহণ করা উচিত। শিল্প একটি তুচ্ছ জিনিস নয়।

একটি গল্প চিত্রায়ন বা উপন্যাস আপনার জন্য কোনটা গুরুত্বপূর্ণ? সাহিত্যিক মূল্য না একটি ভিন্ন শিল্প রূপান্তর প্রক্রিয়া?
ঋত্বিক ঘটক : আমি দুইয়ের মধ্যে কোন পার্থক্য দেখি না। এটা মানুষের জীবনের বিভিন্ন অভিব্যক্তি থেকে আসে। মানবজাতির ভালবাসা গুরুত্বের একমাত্র জিনিস। দৈনিক নিঃশব্দ, নিখুঁত নিন্দা কাজ- এই জীবন? আপনার প্রেম দিতে হবে, আপনার সব দিতে হবে। হৃদয় দিয়ে ভালোবাসতে হবে। আমি এটা করতে সক্ষম হয়েছি কিনা জানি না।

মেঘে ঢাকা তারা, সুবর্ণরেখার ও কমল গান্ধারের মধ্যে কি গভীর সংযোগ রয়েছে? যদি থাকে, তাহলে কি আপনি বিস্তৃতভাবে ব্যাখ্যা করতে পারেন?
ঋত্বিক ঘটক : অবশ্যই একটি স্বাভাবিক সংযোগ আছে। “মেঘে ঢাকা তারা সম্পূর্ণভাবে আমার … আমার অবচেতন সম্পর্ক। কিন্তু … কমল গান্ধার-এর সাথে খুব সচেতন সম্পর্ক ছিল। এবং সুবর্ণরেখা অত্যন্ত গুরুতর কাজ। এটা সত্যিই কঠিন কাজ ছিল, হ্যাঁ মানসিকভাবে … “। শুধু শারীরিক কঠোর পরিশ্রম নয়, কাজটি করার জন্য আমার মনস্তাত্ত্বিকভাবে খুব শ্রম দিতে হয়েছে। আমি জানি না আমি সফল কিনা! কিন্তু, ব্যাপারটি আসলেই দারুণ।

কিন্তু সংযোগ?

ঋত্বিক ঘটক : এই তিনটি মধ্যে শুধুমাত্র একটি সংযোগ আছে এবং তা হল ‘দুই বাংলার একত্রীকরণ’। আমি দুই বাংলাকে একত্রিত করতে চেয়েছি। আমি তাদের উভয়কে ভালবাসি…। আমি যা বলছি এবং আমি তা শেষ পর্যন্ত বলে যাব, আমি মরণ না হওয়া পর্যন্ত বলবো। আমি কোন কিছু কেয়ার করি না। আমি টাকার কেয়ার করি না। আমি এটার সাথে যুদ্ধ করতে পারি। ঋত্বিক ঘটক এখানে যা করতে পারে ও ঢাকায় তা করতে পারে। যে কেউ আমাকে তার জুতা দিয়ে পেটাতে চায়, তাতেও আমার কিছু যায় আসে না।

আপনার বেশিরভাগ চলচ্চিত্রে, দুই বাংলার বিভাজনের মধ্য থেকে সৃষ্ট বেদনা ও দুঃখকে তুলে ধরেছেন। দুই বাংলার বিভাজন কি আমাদের বর্তমান অবস্থা নির্ধারণে বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ?
ঋত্বিক ঘটক : একেবারে। এবং আমি সবসময় এটির বিরুদ্ধে । এমনকি আমার শেষ ছবিতে আমি মনে করি আমি এটা তুলে ধরেছি। আমি রাজনৈতিক একীভূতকরণ সম্পর্কে কোন আলোচনার অংশ নই। আমি এটা বুঝতে পারছি না কারণ এবং আমার এটা কোন প্রয়োজন নেই। কিন্তু সাংস্কৃতিক একত্রীকরণে আমি আবেগপ্রবণ। আমি উভয় বাংলায় কাজ করেছি। আর আমার চেয়ে কেউ বেশি কিছু করেনি। এখানে আমার চেয়ে কেউ বাংলাদেশ সম্পর্কে বেশি জানে না। আমি যেভাবে থাকলাম এবং এখানে কাজ করেছি। বাংলাদেশে তিতাস একটি নদীর নাম চলচ্চিত্রের শুটিং করার সময় সেইসব বাঙালি ছেলে ও মেয়েদের মধ্যে – বিশেষ করে মেয়েদের – এখানে অন্য কেউ এটিকে মেলাতে পারে না। সাংস্কৃতিকভাবে বাঙালিদের বিভক্ত করা যাবে না। দুই বাংলার এক সংস্কৃতি।

আপনি বিশ্বাস করেন যে, আপনি শুধুমাত্র আপনার নিজের আনন্দ জন্য সিনেমা তৈরি করেন। কিন্তু যখন আমরা আপনার চলচ্চিত্র দেখি, তখন আমরা অন্যে কিছু অনুভব করি।
ঋত্বিক ঘটক : সঠিক, সঠিক। উভয় সত্য। সত্য আমার চলচ্চিত্র দেখার পরে আমি আনন্দিত। কোন কাজ মানুষকে ভাল না বাসলে হয় না। আপনি যখন কোনো কাজ করতে চান তখন পাগলের মতো ভালবাসতে হবে। হ্যাঁ, অন্য দিকের দুইয়ের মধ্যে দ্বন্দ্ব আছে। আর্ট তৈরি করার সময় কেন আমি আপনাকে ভালবাসতে পারি না? এখানে একটি অন্তর্নিহিত অসঙ্গতি আছে।

ভারতীয় চলচ্চিত্র ইতিহাসের প্রসঙ্গে, আপনার সমস্ত চলচ্চিত্র ব্যতিক্রম হিসাবে দাঁড়িয়ে আছে। কিন্তু তাদের মধ্যেও, ‘যুক্তি ও তক্কো আর গপ্পো’ আলাদা। আপনি কি মনে করেন?
ঋত্বিক ঘটক : আমার কোন মতামত নেই এটি সম্পূর্ণরূপে অন্যদের ওপর। আমি চলচ্চিত্র তৈরি করতে চেয়েছিলাম এবং আমি এটা করেছি। এখন আপনি যে কোন মূল্য তা নির্ধারণ করুন। আমি কিভাবে জানবো? একজন শিল্পীকে কখনোই এরকম প্রশ্ন করবেন না একজন শিল্পীকে তার কাজের কারণে তিনি সবসময় পক্ষপাতিত্ব করতেই পারেন। তাকে জিজ্ঞাসার মধ্যে কোন কারণ নেই। এটকে কেউ ভালবাসবে বা ঘৃণা করবে , প্রতিক্রিয়া একান্ত তার নিজের। কিছু মানুষ অপছন্দ করবে, কেউ আনন্দিত হবে। কেন এটা নিয়ে আমার উদ্বেগ থাকবে?

কিন্তু আপনি এই ছবিতে ফর্ম পরিবর্তন করেছেন …
ঋত্বিক ঘটক : প্রতিটি শিল্প স্বতন্ত্র। ফর্ম শিল্পীর থিম, দর্শন এবং প্রতিচ্ছবি থেকে আসে। আমি সঠিক ফর্ম বাছাই করছি। তাই ফর্ম পরিবর্তন সম্পর্কে জিজ্ঞাসা কোন পয়েন্ট নেই। বিষয়বস্তু এটাই নির্দেশ করে।

আমার লেলিন’ সিনেমাটি আমরা দেখতে পারিনি, কিন্তু কেন?
ঋত্বিক ঘটক : এইটা….অনেক সমস্যা ছিল। এর মধ্যে ‘মোরারজি দেশাই। আমার লেলিন’ সিনেমাটি সেন্সর বোর্ড থেকে ছাড়পত্র পেয়েছিলো। আমি ছাড়পত্রটি দিল্লি থেকে সংগ্রহ করেছিলাম। এরপর কংগ্রেস ভাগ হয়ে গেল। মোরারজি দেশাই আমাকে একটা চিঠি পাঠালেন। চিঠিকতে শ্রীমতি ইন্দিরা গান্ধী আমাকে বলেছেন ‘ঋত্বিক সিনেমাটা নিষিদ্ধ’। আমি বললাম এটা কি করে হতে পারে! আপনি কিছু একটা করুন।’
পরে হাকসার সাহিব’ যিনি আবার বাবার মতো, আমাকে অনেক ভালোবাসতেন। হাকসার ছিলেন মোরারজির প্রধান সহকারি।
কথা বলার পর হঠাৎ একদিন একটি মেয়ে ওর নাম ‘নন্দিনী’ আমাকে ডেকে বলল ‘ঋত্বিক, তোমার জন্য কি করতে পারি? ওই সময় ঘরের মধ্যে হাসকার সাহিব প্রবেশ করলেন। এবং বললেন ‘ তার সঙ্গে কি অন্যায় করা হচ্ছে? আমার লেলিন’ সিনেমাটি রাশিয়াসহ কয়েকটি সমাজতান্ত্রিক দেশে প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করা হলো।
এদিকে হাসকার এবং নন্দিনী আমাকে ত্রিশ হাজার রুপি দেয়। এই রুপি দিয়ে আমি আমার সংসারের জন্য কিছু খাবার-পানীয় কিনে নেই। বাকী রুপি আমি আমার স্ত্রীর হাতে দিয়ে বলি ‘ এই নাও-এরপর অন্তত একমাস আমাকে বিরক্ত করবে না’।

গ্রন্থনা : স্বরলিপি ও ইফফাত তারান্নুম


সাবস্ক্রাইব করুন! মেইল দ্বারা নিউজ আপডেট পান