কবি আরিফুল ইসলাম এর তৃতীয় কাব্যগ্রন্থ প্রি-অর্ডার করতে এখানে ক্লিক করুন
বর্ণ দিয়ে ছড়া - হাসানআল আব্দুল্লাহ
$post->title

ছবি : কবি হাসানআল আব্দুল্লাহ


অ-তে অশ্বডিম্ব
মানে হলো ফাকিবাজি,
দিলেও কেনো সে ডিম আমি
খেতে তবে হবো রাজি!


আ দিয়ে হয় আরাধনা
মানে হলো নত হওয়া;
সোজা তো নয় মাথা উঁচু
তাল তমালের মতো হওয়া!


ই দিয়ে আজ ইদ লেখা হয়
একাডেমীর নতুন নিয়ম,
ঈদ লিখলে ফিরনি পায়েস
পেতে পারো কিছুটা কম!


ঈগল কিন্তু এখনো জানি
মেলছে পাখা দীর্ঘ ঈ-তে
ওরা তো আর ধার ধারে না
গ্রীষ্ম কিবা দারুণ শীতে!


উ দিয়ে ঠিক উড়তে পারি
ঘুরতে পারি সব আকাশে,
উদার হয়ে শুনতে পারি
মেঘের থেকে কি ডাক আসে।


দীর্ঘ ঊ তো ঊষার প্রতীক,
কী যে করে ভোরের আগে;
শিশির ভেজা ঘাসের উপর
হয়তো সারা রাত্রি জাগে।


গরীব যারা তাদের কি আর
ঋণের কোনো কারণ থাকে?
এই পাড়াতে ঋষি নাকি
মাঝে মাঝে চরণ রাখে।


একুশ মানে আশা এবং
একুশ মানে ভাষা,
তাই তো একুশ চিরটা কাল
আমার ভালবাসা।


ঐ যদি যায় ছইয়ের নিচে
বইও তখন পাবে দিশে,
ঐক্য করে থাকবে তারা
সারাবেলা মিলে মিশে।


ও-এর পরে ঠ বসিয়ে
আকার দিলে হয় যে ওঠা,
পুব আকাশে সূর্য উঁকি
দিলেই শুরু তোমার ছোটা।


ঔষধ দেয় ডাক্তারেরা
কবিরাজ আর নানী বুড়ি,
এক বসাতে খেতে পারি
রসের পিঠা গণ্ডা কুড়ি।


সাবস্ক্রাইব করুন! মেইল দ্বারা নিউজ আপডেট পান