রুদ্র সুশান্ত এর কিশোর কবিতা
$post->title
হিজলের রুপ

হিজলের তলে জ্যোৎস্না জ্বলে চাঁদ উঠেছে তাই,
সবাই  মিলে স্ব-দলবলে জ্যোৎস্না দেখতে যায়।
হিজলের ফুল করেছে ভুল পড়েছে মাটিতে নুঁইয়ে,
নিয়েছি বাতি সঙ্গী সাথী হিজল দেখবো ছুঁইয়ে।


বন্ধুরা বলে হিজল তলে মুগ্ধ করার রুপ,
সেরুপে আমি হিজল চুমি হিজলে দিই ডুব।
রক্ত লালে হিজল ফুলে গহীন কানন আঁকা,
হিজলে নুঁইয়ে বাগান ছুঁইয়ে সবার জ্যোৎস্না দেখা।

জ্যোৎস্নার আলো ভীষণ ভালো পুলক জাগে মনে,
আমায় দেখে সবাই ডেকে চলে হিজল বনে।
পথেপথে মোরা হই আধমরা হই-হুল্লোট আর নেচে,
গতদিন যারা গিয়েছিল তারা যায়নি আজকে কাছে।

হিজলের রুপ এ-কি অপরুপ মায়ায় বেঁধেছে বন,
চুপিচুপি আমি চুমি জন্মভূমি গর্বে ভরে মন।
হিজলের ফাঁকে জ্যোৎস্না ডাকে আয় ছুটে আয়,
মায়াবী রাত সেঁধেছে বাধ ফিরতে না চায়।

হিজলের ফুল গন্ধ তুমুল করেছে আমায় পাগল,
হিজলের হাসি করেছে দাসী মনটা রেখেছে আগল।
হিজলের তলে কতোকথা বলে পাখিসব করে গান,
হিজল বনে আনন্দ সনে হ্লোদে জেগেছে বান।

আমি যদি মরি হিজল সুন্দরী দিস্ পাদদেশে ঠাঁই,
শতোবার মরে তোরে নির্ণয় করে  ফের জন্মাতে চাই।

সাবস্ক্রাইব করুন! মেইল দ্বারা নিউজ আপডেট পান